সিরিজ বৈঠকে ভোট ও র‌্যাব ইস্যু

  • আপডেট সোমবার, ১৬ জানুয়ারী, ২০২৩
  • ২১ দেখেছে

গণতন্ত্র ও মানবাধিকার নিয়ে যখনই সমস্যা দেখতে পাবে তখনই যুক্তরাষ্ট্র পরামর্শ দিতে থাকবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা সফর করা যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতরের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি ডোনাল্ড লু। এর জবাবে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গ্রহণযোগ্য পরামর্শ গ্রহণের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে নিরপেক্ষ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচনের বিষয়ে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ থাকার কথা জানানো হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাকে। যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে নিষেধাজ্ঞায় র‌্যাবের অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে বলেও মন্তব্য করা হয়েছে। ডোনাল্ড লু তার সফরে ১০ ডিসেম্বর বিএনপিকে সমাবেশ করতে দেওয়ায় ধন্যবাদও জানিয়েছেন।

শনিবার সন্ধ্যায় ঢাকা আসা ডোনাল্ড লু গতকাল সকাল থেকে ঢাকায় সিরিজ বৈঠক করেন। সকালে প্রাতরাশ বৈঠক করেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমানের বাসভবনে। বাংলাদেশ-যুক্তরাষ্ট্রের বাণিজ্যিক সম্পর্ক সম্প্রসারণের বিষয়ে এ আলোচনা হয়েছে ঘণ্টা দুয়েক। সেখান থেকে বেরিয়ে শ্রম অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন সলিডারিটি সেন্টারে যান ডোনাল্ড লু। সেখানেও তিনি দুই ঘণ্টার বৈঠক করেন। পরে চলে যান পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে। সেখানে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন ও প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলমের সঙ্গে। পরে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক করেন পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেনের সঙ্গে।
এ বৈঠক শেষে সরাসরি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেন ডোনাল্ড লু। বাংলায় শুরু করেন নিজের বক্তব্য। তিনি বাংলায় বলেন, মনোমুগ্ধকর অতিথিপরায়ণ মানুষের দেশে বন্ধুত্ব শক্তিশালী করতে এসেছি। বৈঠক প্রসঙ্গে বলেন, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রসচিবের সঙ্গে আমাদের মধ্যে বিস্তারিত আলোচনা হয়েছে। আমরা গণতন্ত্র ও মানবাধিকারে প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। যদি কোনো সমস্যা দেখি, তখন আমরা বিষয়টি উত্থাপন করি এবং আমরা পরামর্শ দিতে পারি। এটা আমরা দিতেই থাকব। আমরা মতপ্রকাশের স্বাধীনতা সমুন্নত রাখায় বিশ্বাস করি এবং বাংলাদেশের মতো অংশীদারদের সঙ্গে নিবিড়ভাবে কাজ করি। পরে কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দেন ডোনাল্ড লু। র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা প্রসঙ্গে লু বলেন, ‘র‌্যাবের বিষয়ে ভালো আলোচনা হয়েছে। আপনারা হিউম্যান রাইটস ওয়াচের বিবৃতি লক্ষ্য করলে দেখবেন বিচারবহির্ভূত হত্যার সংখ্যা কমানোর ক্ষেত্রে র‌্যাবের অসাধারণ অগ্রগতির কথা স্বীকার করা হয়েছে। আমরাও এই অগ্রগতির বিষয়টি স্বীকার করি। এটি একটি অসাধারণ কাজ। এতে প্রমাণ হয় যে মানবাধিকার সমুন্নত রেখে র‌্যাব আইনশৃঙ্খলা রক্ষা ও সন্ত্রাসবাদ দমনে ভালো কাজ করছে। জিএসপি প্রসঙ্গে লু বলেন, বর্তমানে কোনো দেশই যুক্তরাষ্ট্রে জিএসপির অধীনে বাজার সুবিধা পায় না। জিএসপি পুনর্বহালে কংগ্রেস যদি কোনো সিদ্ধান্ত নেয়, তবে প্রথম তালিকায় বাংলাদেশ থাকবে। ঢাকা ও ওয়াশিংটনের মধ্যে আইপিএস নিয়েও আলোচনা হয়েছে। এ বিষয়ে ডোনাল্ড লু বলেন, আইপিএস নিয়ে আমাদের চমৎকার আলোচনা হয়েছে। এটি কোনো ক্লাব নয়, বরং একটি কৌশল। তাই এখানে যোগ দেওয়া না দেওয়া বিষয়টি তেমন নয়।

ডোনাল্ড লুকে পাশে নিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আবদুল মোমেন বলেন, আমাদের মধ্যে গঠনমূলক আলোচনা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র আমাদের পুরনো বন্ধু। আমরা সামনের ৫০ বছর কীভাবে সম্পর্ককে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারি, সেটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র যদি গঠনমূলক পরামর্শ দেয় তবে সেটি গ্রহণ করবে বাংলাদেশ। আমাদের মধ্যে যদি কোনো কিছু নিয়ে প্রশ্ন থাকে, তবে আমরা আলোচনা করে সমাধান করব। যদি গঠনমূলক পরামর্শ আসে, আমরা অবশ্যই সেটি গ্রহণ করব। এর নমুনা আমরা দেখিয়েছি। আমাদের যদি কোনো দুর্বলতা থাকে, সেটি আমরা দূর করব।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিষয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মোমেন বলেন, নির্বাচন নিয়ে আলোচনা হয়েছে। আমরাও অবাধ, সুষ্ঠু ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই। তারা বলেছেন, অনেক সময় অনেকে অভিযোগ করেন। আমরা বলেছি, অভিযোগ তো তোমার দেশেরও করে। তোমার ৭৭ পারসেন্ট রিপাবলিকান বলছে, তোমাদের ভুয়া নির্বাচন হয়েছে। আমাদের দেশেও এ রকম কিছু লোক আছে এগুলো বলে। এগুলো তো কিছু লোক বলবে। আওয়ামী লীগ সবসময় গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতায় এসেছে। সবসময় ব্যালটের মাধ্যমে সরকারে এসেছে, বুলেটের মাধ্যমে নয়। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে তাদের সহযোগিতা চাই। কোস্টাল বেল্ট আরও ব্রডেন করতে চাই। এ বিষয়ে তাদের সহযোগিতা চেয়েছি। এ সময় পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন বলেন, আমাদের মধ্যে বেশ কয়েকটি বৈঠক হয়েছে। আমি নিজে খোলামেলা আলোচনা করেছি। বাণিজ্য, বিনিয়োগ, শ্রমপরিস্থিতি, নিষেধাজ্ঞা, মানবাধিকার, গণতন্ত্র, উন্নয়ন, সহযোগিতা, ইন্দো-প্যাসিফিক নিয়ে আমাদের চিন্তাভাবনা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। মাসুদ বিন মোমেন বলেন, গত বছরের মতো এবারও আমাদের মধ্যে ঐকমত্য হয়েছে, আমরা একটি সময়সূচি ধরে চলমান মেকানিজমের মাধ্যমে লক্ষ্য অর্জনের জন্য সম্পর্ককে পরের ধাপে নিয়ে যাওয়ার জন্য কাজ করব। আমাদের যে সম্পদ ও প্রক্রিয়া আছে, সেগুলো ব্যবহার করে সম্পর্ককে পরের ধাপে উন্নতি করব।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে ডোনাল্ড লু যান ফরেন সার্ভিস একাডেমিতে। সেখানে সুশীল সমাজের প্রতিনিধি, আইনমন্ত্রী ড. আনিসুল হক ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খানের সঙ্গে আলাদা আলাদা বৈঠক করেন মার্কিন কর্মকর্তা।

সুশীল সমাজের কাছে নির্বাচন, সুশাসন ও মানবাধিকার নিয়ে জিজ্ঞাসা : বাংলাদেশের নির্বাচন, সুশাসন ও মানবাধিকার বিষয়ে সুশীল সমাজের প্রতিনিধিদের কাছে জানতে চেয়েছেন ডোনাল্ড লু। বাংলাদেশের আগামী জাতীয় নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কি না তাও জানতে চান ডোনাল্ড লু। যদিও ওই মতবিনিময়ে বিএনপির কেউ ছিলেন না বলেই জানিয়েছেন বাংলাদেশ পরিবেশ আইনজীবী সমিতির (বেলা) নির্বাহী প্রধান সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান। তিনি বলেন, নির্বাচন অংশগ্রহণমূলক হবে কি না মতবিনিময়ে ওনারা জানতে চেয়েছেন। তারা বলেছেন, আমরা কোনো দলের পক্ষ নিয়ে কখনো কথা বলি না। আমরা একটি প্রক্রিয়া নিয়ে কথা বলি। মতবিনিময়ে কোনো দল নিয়ে কথা হয়নি। এতে আমার দেখামতে ওখানে বিএনপির কেউ ছিল না। ডোনাল্ড লু বলেছেন, গণতন্ত্র এবং সার্বজনীন মানবাধিকার সমুন্নত রাখতে যুক্তরাষ্ট্র প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। বিষয় দুটির অবস্থান মার্কিন পররাষ্ট্রনীতির কেন্দ্রবিন্দুতে। তাই এ নিয়ে বিশ্বের যেখানেই সমস্যা সেখানেই যুক্তরাষ্ট্র কথা বলে, প্রয়োজনীয় পরামর্শ দেয়। মুক্তভাবে মানুষের কথা বলার স্বাধীনতা এবং এক বা সম্মিলিতভাবে মতামত, আইডিয়া কিংবা চিন্তা জনসমক্ষে শেয়ার করার স্বাধীনতার পক্ষেই যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান।

র‌্যাবের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ইঙ্গিত : ডোনাল্ড লু’র সঙ্গে বৈঠক শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, চলমান সংস্কার কার্যক্রম অব্যাহত থাকলে র‌্যাবের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারের ইঙ্গিত দিয়েছেন ডোনাল্ড লু। তিনি আরও বলেন, র‌্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার জটিল প্রক্রিয়া হলেও ভবিষ্যতে ক্লিয়ার হবে। তবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র বলছে, র‌্যাব ইস্যুতে বাংলাদেশ সঠিক প্রক্রিয়ায় এগোচ্ছে। এতেই মীমাংসা হবে। এ ছাড়া গত ১০ ডিসেম্বর বিএনপিকে সমাবেশ করতে দেওয়ায় মার্কিন সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী ডোনাল্ড লু ধন্যবাদ জানিয়েছেন বলেও জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।

যা জানাল পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়: মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়া বিষয়ক দফতরের সহকারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী রাষ্ট্রদূত ডোনাল্ড লু এর সঙ্গে বৈঠকে উভয়পক্ষ বাণিজ্য, বিনিয়োগ, উন্নয়ন সহায়তা, প্রতিরক্ষা, নিরাপত্তা, ইন্দো-প্যাসিফিক কৌশল, শ্রম, গণতন্ত্র ও মানবাধিকার সহ দ্বিপক্ষীয় বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। এছাড়াও, বাংলাদেশে অবস্থানরত ১০ লক্ষাধিক জোরপূর্বক বাস্তুচ্যুত মিয়ানমার নাগরিকদের জন্য মানবিক সহায়তা, তাদের প্রত্যাবাসন ও পুনর্বাসনের বিষয়সমূহ আলোচনায় উঠে আসে। এ সময় রাষ্ট্রদূত লু রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে আশ্রয় প্রদানের জন্য বাংলাদেশের ভূয়সী প্রশংসা করেন। এ ছাড়াও, বাংলাদেশের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী; বিশেষ করে, র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এর কার্যক্রমের ইতিবাচক পরিবর্তনের বিষয়ে সাধুবাদ জানান। উভয়পক্ষ দুদেশের বর্তমান সুসম্পর্কের বিষয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেন এবং এ ধারা অব্যাহত রাখার পাশাপাশি দ্বিপক্ষীয় বাণিজ্য ও পারস্পরিক সহযোগিতা সম্প্রসারণে নতুন পন্থা অন্বেষণের বিষয়ে গুরুত্বারোপ করেন। কভিড-১৯ ভ্যাকসিন প্রদানের লক্ষ্যমাত্রা পূরণে অভুতপূর্ব সাফল্য অর্জনের জন্য রাষ্ট্রদূত লু বাংলাদেশকে ভূয়সী প্রশংসা করেন। ১০ কোটিরও বেশি কভিড ভ্যাকসিন প্রদানের জন্য বাংলাদেশের পক্ষ থেকে যুক্তরাষ্ট্রকে ধন্যবাদ জানানো হয়। ভবিষ্যতে এ ধরনের কোনো অতিমারির ক্ষেত্রেও একসঙ্গে কাজ করার ব্যাপারে যুক্তরাষ্ট্র আগ্রহ প্রকাশ করে। উভয়পক্ষ পারস্পরিক অন্তর্ভুক্তিমূলক অংশীদারিত্ব বজায় রেখে অন্যান্য খাতে সহযোগিতা বাড়ানোর বিষয়ে সম্মত হয়। বাংলাদেশে ব্যাপক আর্থ-সামাজিক উন্নয়নের প্রশংসা করে রাষ্ট্রদূত লু বাংলাদেশের সব ইতিবাচক প্রচেষ্টার বিষয়ে মার্কিন প্রশাসনের অব্যাহত সমর্থন ও সহযোগিতার প্রতিশ্রুতি দেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পক্ষ থেকে রাষ্ট্রদূত পিটার হাস এবং স্টাফ অফিসার উইলিয়াম শিবার বৈঠকসমূহে উপস্থিত ছিলেন। বাংলাদেশের পক্ষ থেকে সচিব (মেরিটাইম বিষয়ক) রিয়ার এডমিরাল (অব.) মো. খুরশেদ আলম, যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মুহাম্মাদ ইমরান, সচিব (পশ্চিম) শাব্বির আহমেদ চৌধুরী, মহাপরিচালক এবং পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অন্যান্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা বিভিন্ন বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!