চট্টগ্রামতথ্যদুর্ঘটনাশীর্ষ খবরসর্বশেষ

সঞ্চয়ের নামে গ্রাহকের ৩০ লাখ টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

ডি.পি.এস. সঞ্চয় স্কিমের নামে দিশা মাল্টিপারপাস ফাউন্ডেশনের গ্রাহকদের ২৭,৫৯,৫৬৯ টাকা আত্মসাতের নগরীর বন্দরথানাধীন পোর্ট কলোনী এলাকায় জামাল ফরাজির মালিকানাধীন দিশা মাল্টিপারপাস ফাউন্ডেশনের প্রায় অর্ধ কোটি টাকা অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৪টায় নগরীর প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভুক্তভোগীরা। চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের ওয়ার্ড মাষ্টার প্রতারণার স্বীকার কামরুল ইসলাম অভিযোগ করে বলেন “দিশা ফাউন্ডেশন” দ্বিগুণ লাভের প্রলোভন দেখিয়ে ডিপিএস করার কথা বললে মাসিক ১,০০০/- (এক হাজার) টাকা চালু করি। সাথে আমার ভাই বোন, আত্মীয়-স্বজন সহ সর্বমোট ৩৫ জনের ডিপিএস করে প্রায় ৪ লক্ষ টাকা জমা প্রদান করি। অতপর মেয়াদান্তে দিশা ফাউন্ডেশনের কাছে জমাকৃত টাকা ফেরত চাহিলে দিবে বলে মাসের পর মাস প্রতিশ্রুতি দিয়ে আমাদের আস্বস্ত করে। প্রতিশ্রুতি মোতাবেক সময়ের পর অর্থ চাহিতে গেলে আমাকে মারধর করে এবং হত্যার হুমকি দেয়। জমা বই ছিনিয়ে নেয়। পরবর্তীতে কোন উপায় না দেখে আমি এবং আমার আত্মীয়-স্বজনদের কে নিয়ে কোর্টের ধারস্থ হয়ে মামলা দায়ের করি। যার মামলা নং- ১৯৭/১৮। মামলা দায়েরের পর আমাকে ভাড়াটে খুনি দিয়ে হত্যা করার চেষ্টা করছে প্রতিনিয়ত। উল্লেখ্য, চল্লিশ জন সদস্য থেকে ২৭,৫৯,৫৩৬/- টাকা আত্মসাতের পর প্রতারণার স্বীকার সদস্যরা প্রথমে বন্দর থানায় অভিযোগ করতে গেলে এখনো অভিযোগ গ্রহণ করে নাই। তারপর পুলিশ কমিশনার বরাবরে গত ১৪/০৭/২০১৮ইং তারিখে লিখিত অভিযোগ পেশ করি, যাহার জমা স্মারক নং- ১৫৬৭১। কিন্তু কোন প্রতিকার পায়নি। দুদক ও র‌্যাবের কাছে অভিযোগ করে কোন ফলাফল মেলেনি।

সর্বশেষ আদালতে মামলা করলে কোর্টের তদন্ত রিপোর্টে এ জালিয়াতির বিষয়টি প্রমানিত হয়। কিন্তু অজ্ঞাত কারণে কোন প্রতিকার পায়নি বলে অভিযোগ করেছে ভুক্তভোগীরা।

Comment here