শিরোনাম
পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষে নির্মাণ শ্রমিকদের দিনব্যাপী মৌলিক প্রশিক্ষণ জেলা তথ্য অফিস কর্তৃক ৪০ তম বিসিএসে নবনিযুক্ত কর্মকর্তাবৃন্দকে সংবর্ধনা জামালপুর জেলা আ.লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন   ত্রিশালে কিশোর-কিশোরী ও নারী উন্নয়ন সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে মতবিনিময় সভা ইসলামপুরে অতিদরিদ্রদের জন্য কর্মসংস্থান কর্মসূচি কাজের শুভ উদ্বোধন  ত্রিশালে বিতর্ক প্রতিযোগিতা ও শিক্ষার্থীদের রান্না করা খাবার পরিবেশন  জাতীয় পার্টি ফুলবাড়ীয়া উপজেলা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠিত জামালপুর ইসলামপুর বিনামূল্যে বীজ সার বিতরণ ও কৃষক সমাবেশ ত্রিশালে ভোক্তা অধিকারের অভিযান, ৫৫ হাজার টাকা জরিমানা মাওলানা ভাসানীর ৪৬তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

নিরাপদ ও সুপেয় পানির আওতায় এলো নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়

ফাতেমা শবনম
  • আপডেট বুধবার, ১৯ অক্টোবর, ২০২২
  • ১৯ দেখেছে

বিশুদ্ধ পানির প্রয়োজনীয়তা থেকে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পর্যাপ্ত পানি বিশুদ্ধকরণ যন্ত্র (ফিল্টার) স্থাপিত হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখরের নিদের্শনায় এই ফিল্টারগুলো স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে প্রশাসন। এরমধ্য দিয়ে নিরাপদ ও সুপেয় পানির আওতায় এলো নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়। ফলে শিক্ষার্থীদের নিরাপদ পানির দাবিটিও পূরণ হলো।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, পানির চাহিদা পূরণের লক্ষ্যে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন স্থানে মোট ৬৫টি ফিল্টার স্থাপিত হয়েছে।

এরমধ্যে অগ্নিবীণা হলে ৫টি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হলে ২২টি, দোলনচাপা হলে ৫টি ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুননেছা মুজিব হলে ১টি ফিল্টার দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া লাইব্রেরি, পরীক্ষার হল, মসজিদ, ব্যাংকসহ বিভিন্ন বিভাগ ও দপ্তরে কমপক্ষে একটি করে পানি বিশুদ্ধকরণ যন্ত্র দেওয়া হয়েছে। ক্যাম্পাসঘুরে দেখা যায় ইতোমধ্যেই ফিল্টারগুলো স্থাপনের কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। শিক্ষার্থীরা খুব সহজেই বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারছে।

এই প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা মিরাজুল ইসলাম বলেন, নজরুল বিশ^বিদ্যালয়ে স্থাপিত ফিল্টার উন্নতমানের যা বাইরে থেকে আমদানি করা হয়েছে। এটি খুব সহজেই দেওয়ালে ঝুলানো যায়। পানি বিশুদ্ধকরণে ফুটানোর কোন প্রয়োজনীয়তা নেই।

অগ্নিবীণা হলের প্রভোস্ট কল্যাণাংশু নাহা বলেন, ভিসি স্যারের উদ্যোগে গোটা ক্যাম্পাসে বিশুদ্ধ পানি নিশ্চিতের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। সেই লক্ষ্যে পাইলট প্রজেক্ট আকারে ক্যাম্পাসের অগ্নিবীণা হলে পাইলট প্রজেক্ট হিসেবে ৫টি ফিল্টার স্থাপন করা হয়েছিল। তাতে সফলতা পাওয়ায় পরে পুরো ক্যাম্পাসে চাহিদাকৃত ফিল্টার স্থাপন করা হয়েছে। এতে করে শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা দারুণ খুশি।

বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর বলেন, স্থাপিত পানির ফিল্টারগুলো থেকে শিক্ষার্থীরাসহ সকলেই নিরাপদ ও বিশুদ্ধ পানি পান করতে পারবে। পানিবাহিত রোগবালাই প্রতিহত করা যাবে। বিশুদ্ধ পানির গুরুত্ব অনুধাবন করে স্থাপিত পানির ফিল্টারগুলো রক্ষণাবেক্ষনে আমাদের সকলেরই আন্তরিক ও যত্নবান হতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!