শিরোনাম
ত্রিশা‌লে নির্মণ কা‌জের উ‌দ্বোধন অব‌শে‌ষে মিনহা‌জের সহ‌যোগীতায় ম‌মে‌কে অজ্ঞাত বৃদ্ধা ফুলবাড়িয়া মাহফিজুর রহমান বাবুলের তৃতীয় সন্তান নিলয় আর নেই। আর এম বি সি কল্যাণ সমিতি, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা,র সাধারন সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা সদ্য প্রয়াত সাইদুল ইসলাম খান পল স্বরণে আলোচনা, মিলাদ ও দোয়া ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টি, র মহাসচিব এর রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত ফুলবাড়িয়ায় আ’লীগ শীর্ষ নেতাদেরকে অসম্মান করে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারম্যান ময়মন‌সিংহ বিভাগ সমিতি ঢাকা,র করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন প্রতিবন্ধী দুই ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি ত্রিশালে বলাৎকারের অভিযোগে বড় হুজুর আটক আরেক দফা বাড়াছে বিধিনিষিধ, চুরান্ত কাল

নজরুল সেনা স্কু‌লের রাস্তা বন্ধ করায় প্রতিবাদ

‌ত্রিশাল (ময়মন‌সিংহ) প্রতি‌নি‌ধি
  • আপডেট রবিবার, ১০ অক্টোবর, ২০২১
  • ৮৯ দেখেছে

ময়মনসিংহের ত্রিশালের ঐতিহ্যবাহী ‌শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নজরুল সেনা স্কুলের মূল প্রবেশ পথ বন্ধ ক‌রে সীমানা প্রাচীর তুলায় ভোগান্তি‌তে কোমলম‌তি শিক্ষার্থীরা। এ নি‌য়ে এলাকায় ক্ষোভ ভিরাজ কর‌ছে। এ ঘটনায় র‌বিবার (১০ আ‌ক্টোবর) দুপু‌রে ক্লাশ বর্জন করে মৌন মিছিল ও প্রতিবাদ করেছে স্কুলের শিক্ষার্থী অভিবাবক ও শিক্ষক/শিক্ষিকাগণ। পরে প্রতিবাদকারীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে অভিযোগ দায়ের ক‌রে‌ন।

শিক্ষার্থীরা জানান, দীর্ঘদিন থেকে চলে আসা ত্রিশাল পৌরসভার ৬নং ওয়ার্ডে প্রতিষ্ঠিত নজরুল সেনা স্কুলের জায়গা তিন জনের একজন বিক্রি করে দিয়েছে। ঐ বিক্রিত জমির ক্রেতা রফিকুল ইসলাম। তার জায়গাতে উচ্চ ভাড়া দিয়ে না থাকার আক্রোশে স্কুলটি বন্ধ করে দিতে রাতা-রাতি সীমানা প্রাচীর তুলেন এবং রাস্তা বন্ধ করে দিয়েছে।দেশে করোনার কারণে দীর্ঘদিন স্কুল বন্ধ থাকায় অনেক অাশা নিয়ে আমরা শিক্ষার্থীরা যখন স্কুলে ফিড়ছিলাম ঠিক এই মুহু‌র্তে আমাদেরকে হতাশার দিকে ঠেলে দিলেন জয়নাল মাষ্টার ও তার জমির ক্রেতা রফিকুল ইসলাম।

স্কুল শিক্ষকরা জানান, আমাদের ছাত্রদের নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি চলাতে এমনিতেই হিমশিম খাচ্ছি এই মুহু‌র্তে রফিকুল ইসলাম তার জায়গায় দ্বিগুন ভাড়া দাবী ক‌রে। রাস্তাটি বন্ধ হ‌লে স্কুল বন্ধ হয়ে যাবে, শিক্ষার্থীদের পাঠদান কার্যক্রম অনিশ্চিত হ‌য়ে পর‌বে।

তথ‌্য সূ‌ত্রে জনাযায়, প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি হওয়ায় স্থায়ী ভা‌বে স্কুল স্থাপন করার ল‌ক্ষ্যে ১৩শতাংশ জমি যৌথভাবে ক্রয় ক‌রে জয়নাল আবদীন, মজিবুর রহমান ও আবুল কাশেম। আর এ তিন জন স্কুলের শিক্ষক ও ম্যানেজিং কমিটিতে ছিল। এক সময় স্কুল থেকে জয়নাল আবদীন চাকুরী ছেড়ে দেয় এবং ভূ‌মি বন্টন না ক‌রেই তার অংশের জ‌মি‌ সাম‌নের অংশ থে‌কে জনৈক র‌ফিকুল ইসলা‌মের কা‌ছে বি‌ক্রি ক‌রে দেয়।

এলাকাবাসীর জানান, রফিকুল মাস্টার বহু পুরাতন এই স্কুলটি ধ্বংস করতে রাতারাতি একপক্ষ থেকে জমি কিনে রাস্তা বন্ধ করে সিমানা প্রাচীর তুলেছেন। আমরা এর প্রতিকার চাই।

রফিকুল ইসলাম জানান, আমি টাকা দিয়ে জমি কিনেছি। এখানে সরকারি কোন হালট নেই।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!