তালতলীতে দুই সন্তানের জনকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

জ‌লিল আহ‌মেদ, তালতলী (বরগুনা) থে‌কে
  • আপডেট বুধবার, ৩০ মার্চ, ২০২২
  • ৩৪ দেখেছে

বরগুনার তালতলীতে দুই সন্তানের জনক মো. বাচ্চু (৩৫) নামে এক ব্যক্তির ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বুধবার সকাল ১০টার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়।

পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, পারিবারিকভাবে ১০ বছর আগে বাচ্চু ও আসমা বিয়ে হয়। এরপর থেকেই উপজেলার ছোটভাইজোড়া এলাকার সরকারি আশ্রয়ণে বসবাস করেন তাঁরা। তাঁদের ৫ বছরের একটি মেয়ে ও ১ বছরের একটি ছেলে রয়েছে। এরই মধ্যে গত দুই মাস যাবৎ বাচ্চু একই আশ্রয়ণের তাঁদের পাশের ঘরের শুভ নামে এক ব্যক্তির স্ত্রী মার্জিয়ার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। এ নিয়ে স্ত্রীর সঙ্গে বাচ্চুর ঝামেলা লেগেই থাকত।

বিষয়টি মার্জিয়ার স্বামী শুভসহ তাঁর পরিবারকে জানালে তাঁরা উল্টো আসমার ওপর রাগারাগি ও মারধর করেন। পরে স্থায়ীভাবে বিষয়টি মিটমাট করে দেওয়া হয়। এরপরে বাচ্চু সঙ্গে মার্জিয়ার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়। হঠাৎ মঙ্গলবার দিবাগত রাত ১২টার দিকে ঘর থেকে বের হয়ে যান বাচ্চু। তাঁকে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন স্ত্রী আসমা। একপর্যায়ে আশ্রয়ণের উত্তর দিকে পুকুর পাড়ের একটি গাছে বাচ্চুর ঝুলন্ত মরদেহ দেখা যায়। পরে পুলিশ এসে মরদেহটি উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে আসমা বলেন, ১০ বছর আগে পারিবারিকভাবে আমাদের বিয়ে হয়। বিয়ের পর আমরা শান্তিতে বসবাস করছিলাম। আমাদের সংসারে দুটি সন্তান রয়েছে। তবে দুই মাস আগে প্রতিবেশী শুভর স্ত্রী মার্জিয়ার সঙ্গে আমার স্বামী পরকীয়া সম্পর্কে জড়িয়ে পড়েন। বিষয়টি জানাজানি হলে এ নিয়ে সালিসে মীমাংসা করা হয়। এরপর মার্জিয়া স্বজনেরা আমার স্বামীকে হুমকি দেয় ও মারধর করেন।

আসমা আরও বলেন, মার্জিয়া আমার স্বামীকে আত্মহত্যা করতে বাধ্য করেছেন।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাখাওয়াত হোসেন তপু বলেন, খবর পেয়ে ঝুলন্ত অবস্থায় বাচ্চুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ বরগুনা সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ওসি আরও বলেন, এ বিষয়ে এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!