শিরোনাম
আর এম বি সি কল্যাণ সমিতি, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা,র সাধারন সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা সদ্য প্রয়াত সাইদুল ইসলাম খান পল স্বরণে আলোচনা, মিলাদ ও দোয়া ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টি, র মহাসচিব এর রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত ফুলবাড়িয়ায় আ’লীগ শীর্ষ নেতাদেরকে অসম্মান করে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারম্যান ময়মন‌সিংহ বিভাগ সমিতি ঢাকা,র করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন প্রতিবন্ধী দুই ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি ত্রিশালে বলাৎকারের অভিযোগে বড় হুজুর আটক আরেক দফা বাড়াছে বিধিনিষিধ, চুরান্ত কাল ত্রিশালে হারা‌নো সুমাইয়া প‌রিবা‌রে ফেরৎ ত্রিশা‌লে লকডাউন অমান‌্য করায় ১৬ জন‌কে জ‌রিমানা রাস্তা সংস্কারের দাবিতে ত্রিশালে মানববন্ধন

ঢাবিতে ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মারামারি

  • আপডেট বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০
  • ৬৩ দেখেছে
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্র (টিএসসি) এলাকায় ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের নেতা-কর্মীদের মধ্যে মারামারির ঘটনা ঘটেছে৷ এ ঘটনায় দুই পক্ষই হামলার পাল্টাপাল্টি অভিযোগ করেছে৷ গতকাল বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে এই ঘটনা ঘটে৷

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টরিয়াল টিমের অনুরোধে ডাকসু সদস্য ও ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা তানভীর হাসান সৈকতের নেতৃত্বে কয়েকজন ছাত্রলীগ নেতা-কর্মী ও সাধারণ শিক্ষার্থী টিএসসি এলাকায় ভিড় করা মানুষদের চলে যেতে বলছিলেন৷ এ সময় টিএসসিতে থাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রদল নেতা মাহফুজুর রহমান চৌধুরীর ছাত্রলীগ নেতা ইমাম হোসেনের কথা-কাটাকাটি হয়৷ একপর্যায়ে দুপক্ষের নেতা-কর্মীরা জড়ো হলে মুহুর্তেই মারামারি বেধে যায়।

তবে ডাকসু সদস্য তানভীর হাসান সৈকত আরটিভি নিউজকে বলেন, আমরা নিয়মিতই প্রক্টরিয়াল বডির অনুরোধ টিএসসিতে ভিড় না করতে মাইকিং করছিলাম। এ সময় টিএসসিতে ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা ছিলেন। ছাত্রদল নেতা মাহফুজ বান্ধবী নিয়ে তখন ঢোকেন। ইমাম তার পরিচয় জিজ্ঞেস করে, সে শিক্ষার্থী পরিচয় দিলে ইমাম চলে যায়। কিন্তু মাহফুজ তাঁকে ধাক্কা দেন৷ এতে ইমামের পা ম্যানহোলে আটকে গেলে খাবার বিক্রেতার ছেলে মানিক দৌঁড়ে গিয়ে ইমামকে বাঁচানোর চেষ্টা করেন৷ কিন্তু ততক্ষণে ছাত্রদলের অন্য নেতা-কর্মীরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ইমাম ও মানিককে মারতে শুরু করেন৷ টিএসসিতে অবস্থানরত ইমামের বন্ধু সাহাদ আমিনকেও ছাত্রদল নেতা-কর্মীরা মারধর করেন৷ একপর্যায়ে উপস্থিত সাংবাদিকসহ কয়েকজন ব্যক্তি তাঁদের উদ্ধার করেন। ভুক্তভোগীরা ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে ভর্তি হন৷ এ ঘটনায় মানিকের হাত ভেঙে গেছে৷

তবে ছাত্রদল নেত্রী মানসুরা আলম ঘটনাটিকে সদ্যসাবেক ডাকসু সদস্য তানভীর হাসানের ‘ভণ্ডামি’ বলে উল্লেখ করেছেন৷ এই নেত্রীর অভিযোগ, তানভীরের নির্দেশেই ছাত্রদল নেতা মাহফুজুর রহমান চৌধুরীর ওপর হামলা হয়েছে৷ ছাড়ানোর চেষ্টা করতে গিয়ে আমি নিজেও একদফা মার খেয়েছি৷ ইমাম ছেলেটা একাধিকবার আমাদের দিকে তেড়ে আসে মারতে। উপস্থিত লোকজন তাকে আটকান কোনোমতে৷ এরপর মাহফুজকে নিয়ে আমরা ঢাকা মেডিকেলে যাই। সেখানে ওকে চিকিৎসা দিতে দিতেই সাংবাদিকদের ফোন পাই যে আমরাই নাকি তানভীর ও তার লোকজনের ওপর হামলা করেছি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!