শিরোনাম
কেতকীবাড়ি চান্দখানার রাস্তার বেহাল দশা দেখার কেউ নেই ছাত্র আন্দোলন আমিরাবাড়ী ইউনিয়নের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টির নেতার স্বরণ সভা ও দোয়া মাহফিল ভূঞাপুরে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনকে কারাদণ্ড এবার নেত্রকোনায় ৩ নবজাতকের নাম রাখা হলো স্বপ্ন ,পদ্মা ও সেতু: নির্মাণ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেলো সাড়ে তিন কোটি টাকার সেতু সুনামগঞ্জে ১৫ দিনের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় ভয়াবহ বন্যা, বিপাকে লক্ষ লক্ষ মানুষ নেত্রকোনায় বৃষ্টিপাত অব্যাহত, বেড়ে চলেছে নদ-নদীর পানি টাঙ্গাইলে ১৮ ইউপি নির্বাচনে আ.লীগ ১১, বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র ৭ টাঙ্গাইলে কিলোমিটার পোস্টে ‘বঙ্গবন্ধু’ বানান ভুল

জেলা আ.লীগ নেতা হত্যাচেষ্টায় স্ত্রী গ্রেফতার

  • আপডেট শনিবার, ২৯ আগস্ট, ২০২০
  • ২৮১ দেখেছে

মাদারীপুরে জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ইলিয়াস আহম্মেদ হাওলাদারকে হত্যাচেষ্টা মামলায় পরকীয়া প্রেমিকসহ স্ত্রী মিলি আক্তারকে (৪২) গ্রেফতার করেছে জেলার গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। শুক্রবার রাতে রাজধানীর মিরপুরের মনিপুর এলাকার একটি বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। এসময় পৃথক স্থান থেকে মিলির পরকীয়া প্রেমিক সাইদুর রহমান জাহিদকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পরে মিলি ও জাহিদকে মাদারীপুর পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে নিয়ে আসা হয়।

পুলিশ ও মামলার সূত্র জানায়, চলতি মাসের ২০ তারিখ ভোররাতে ঘুমন্ত অবস্থায় ইলিয়াস আহম্মেদকে মসলা বাটার শিল (নোড়া) দিয়ে মাথায় গুরুতর আঘাত করেন স্ত্রী মিলি আক্তার। গুরুতর অবস্থায় উদ্ধার করে তাকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। অবস্থার অবনতি হলে তাকে পাঠানো হয় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। এরপর তিনি ঢাকার একটি বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসা নেন।

এ ঘটনায় ২৩ আগস্ট ইলিয়াস নিজে বাদী হয়ে সদর মডেল থানায় একটি হত্যাচেষ্টা মামলা করেন। মামলায় স্ত্রী মিলিকে একমাত্র আসামি ও অজ্ঞাতনামা আরও পাঁচজনের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এ সম্পর্কে মাদারীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আব্দুল হান্নান মিয়া বলেন, স্বামীকে হত্যাচেষ্টা মামলায় স্ত্রীকে আমরা ঢাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়েছে । তাকে ও তার পরকীয়া প্রেমিক জাহিদকে পুলিশ হেফাজতে জিজ্ঞাসাবাদ চলছে। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে তাদের আজ আদালতে তোলা হবে।

এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও বলেন, ফেসবুকের মাধ্যমে মিলির সাথে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সাইদুর রহমান জাহিদের সাথে পরিচয় হয়। জাহিদ চট্টগ্রামের সন্দীপের বাসিন্দা। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মিলি জানিয়েছেন, দাম্পত্য জীবনে কলহ, তর্কবিতর্কের কারণেই নোড়া দিয়ে স্বামীকে মাথায় আঘাত করেন। আঘাত করেই তিনি ঢাকায় এসে একজনের বাসায় আত্মগোপনে ছিলেন। জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আরও বিস্তারিত বলা যাবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!