শিরোনাম
ত্রিশালে বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নিখিলের মৃত্যু ত্রিশা‌লে নির্মণ কা‌জের উ‌দ্বোধন অব‌শে‌ষে মিনহা‌জের সহ‌যোগীতায় ম‌মে‌কে অজ্ঞাত বৃদ্ধা ফুলবাড়িয়া মাহফিজুর রহমান বাবুলের তৃতীয় সন্তান নিলয় আর নেই। আর এম বি সি কল্যাণ সমিতি, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা,র সাধারন সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা সদ্য প্রয়াত সাইদুল ইসলাম খান পল স্বরণে আলোচনা, মিলাদ ও দোয়া ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টি, র মহাসচিব এর রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত ফুলবাড়িয়ায় আ’লীগ শীর্ষ নেতাদেরকে অসম্মান করে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারম্যান ময়মন‌সিংহ বিভাগ সমিতি ঢাকা,র করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন প্রতিবন্ধী দুই ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি ত্রিশালে বলাৎকারের অভিযোগে বড় হুজুর আটক

‘শরীর ভালো লাগছে না’ স্ট্যাটাস দেওয়ার দুই ঘণ্টা পর সাংবাদিকের মৃত্যু

  • আপডেট রবিবার, ১৪ জুন, ২০২০
  • ৯৪ দেখেছে

নেত্রকোনায় দেশ টিভির জেলা প্রতিনিধি ও ভোরের কাগজের সাংবাদিক লিটন ধর গুপ্ত আর নেই। শনিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পরপরই হৃদযন্ত্রের ক্রিয়া বন্ধ হয়ে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৫২ বছর। মৃত্যুর ঠিক দুই ঘণ্টা পূর্বে শরীর ভালো লাগছে না, বুকে ব্যথা হচ্ছে, ময়মনসিংহে যাচ্ছি বলে লিটন ধর গুপ্ত একটি স্ট্যাটাস দেন ফেসবুকে। কিন্তু এটিই যে তার শেষ স্ট্যাটাস হবে তা হয়তো নিজেও জানতেন না।

আজ রবিবার সকাল ১০টায় নেত্রকোনা মহাশ্মশান ঘাটে লিটন ধর গুপ্তের অন্তেষ্টিক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছে স্বজনরা।

গত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ বোধ করছিলেন লিটন ধর গুপ্ত। আগে থেকে ডায়াবেটিস ছিল তার। এর মাঝে হার্টের সমস্যা দেখা দেয়।গত কয়েকদিন ধরে ব্যথা বেশি অনুভূত হলে শনিবার দুপুরে দুইটার দিকে কয়েকজন বন্ধু মিলে লিটন ধর গুপ্তকে নেত্রকোনা হাসপাতালে নিয়ে যান। সেখানে ডাক্তার তাৎক্ষণিক ময়মনসিংহ নেয়ার কথা বলে দেন। কিন্তু লিটনের সহধর্মিণী সীমা রায় মোহনগঞ্জে চাকরিরত থাকায় আসতে বিলম্ব হয়। পরবর্তীতে সন্ধ্যা সোয়া ৬টার দিকে এম্বুলেন্স যোগে ময়মনসিংহ রওয়ানা দেন। ময়মনসিংহ পৌঁছার পরপরই লিটন ধর গুপ্ত মারা যান। তার অকাল মৃত্যুতে সাংবাদিক, সাংস্কৃতিক, রাজনৈতিক ও সামাজিক সকল স্তরের মানুষের মাঝে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

লিটন ধর গুপ্ত টেলিভিশন পত্রিকা ছাড়াও বাংলাদেশ বেতারের নেত্রকোনা সংবাদদাতা ছিলেন। নেত্রকোনা পৌর শহরের সাতপাই নদীর পাড় এলাকার বাসিন্দা লিটন সাংবাদিকতা ছাড়াও শিল্পকলা একাডেমি ও শিশু একাডেমির যন্ত্রী প্রশিক্ষক ছিলেন। লিটন ধর গুপ্ত নেত্রকোনা জেলা প্রেসক্লাবের সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক এবং জেলা টেলিভিশন ফোরামের সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী ও এক ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!