শিরোনাম
ত্রিশা‌লে নির্মণ কা‌জের উ‌দ্বোধন অব‌শে‌ষে মিনহা‌জের সহ‌যোগীতায় ম‌মে‌কে অজ্ঞাত বৃদ্ধা ফুলবাড়িয়া মাহফিজুর রহমান বাবুলের তৃতীয় সন্তান নিলয় আর নেই। আর এম বি সি কল্যাণ সমিতি, এলিফ্যান্ট রোড, ঢাকা,র সাধারন সম্পাদক ও আওয়ামীলীগ নেতা সদ্য প্রয়াত সাইদুল ইসলাম খান পল স্বরণে আলোচনা, মিলাদ ও দোয়া ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টি, র মহাসচিব এর রোগমুক্তি কামনায় মিলাদ ও দোয়া অনুষ্ঠিত ফুলবাড়িয়ায় আ’লীগ শীর্ষ নেতাদেরকে অসম্মান করে মন্তব্য করেছেন বিএনপির চেয়ারম্যান ময়মন‌সিংহ বিভাগ সমিতি ঢাকা,র করোনায় ক্ষতিগ্রস্তদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরন প্রতিবন্ধী দুই ছেলেকে বাঁচাতে মা-বাবার আকুতি ত্রিশালে বলাৎকারের অভিযোগে বড় হুজুর আটক আরেক দফা বাড়াছে বিধিনিষিধ, চুরান্ত কাল

ওয়াকার্স পার্টির উদ্যোগে ত্রিশালে সন্ত্রাস বিরোধী দিবস পালিত

ম‌মিনুল ইসলাম ম‌মিন
  • আপডেট মঙ্গলবার, ১৭ আগস্ট, ২০২১
  • ৮৫ দেখেছে

ময়মনসিংহের ত্রিশালে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ও নারী মুক্তি সংসদের উদ্যোগে আলোচনা সভা, শোভা যাত্রা ও মানববন্ধনের মাধ্যমে সন্ত্রাস বিরোধী দিবস পালন করা হয়। এ উপলক্ষে মঙ্গলবার (১৭ আগস্ট) এক আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন বাংলাদেশ জাতীয় কৃষক সমিতির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি ত্রিশাল উপজেলা কমিটির সভাপতি কৃষিবিদ নিতাই চন্দ্র রায়। প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে গুরুত্বপূর্ণ বক্তব্য রাখেন, প্রবীণ আওয়ামী লীগ নেতা ফজলে রাব্বী  এবং মূল বক্তব্য উপস্থাপন করেন, ত্রিশাল সরকারি নজরুল কলেজের সাবেক অধ্যাপক ও বিশিষ্ট কবি সাব্বির রেজা। বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন, নারী মুক্তি সংসদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও ময়মনসিংহ জেলা কমিটির সভাপতি নারী নেত্রী কল্পনা মোদক, ত্রিশাল রিপোটার্স ক্লাবের সভাপতি কামাল হোসেন।

এছাড়া অন্যান্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন বাবু আশুতোষ কর্মকার, শুভেন্দু পন্ডিত প্রমুখ। আলোচনা সভায় ত্রিশালের নারী নেত্রীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ১,২.৩ নং ওয়ার্ডের মহিলা কাউন্সিলর ফাতেমা খাতুন মিনা, উপজেলা নারী মুক্তি সংসদের সভাপতি গায়েত্রী রানী তালুকদার, সাধারণ সম্পাদক খালেদা আক্তার, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য শম্পা রায় ও সংগীত শিক্ষিকা গীতা রানী রায় প্রমুখ। সভা শেষে ত্রিশাল পৌরশহরে একটি শোভা যাত্রা ও মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

উল্লেখ্য, ২০৯২ সালের এই দিনে ওয়ার্কার্স পার্টির তোপখানা রোডের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে জননেতা রাশেদ খান মেননকে গুলি করা হলে তিনি গুরুতর আহত হন। প্রথমে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ও পরে সিএমএইচে তাঁর চিকিৎসা এবং অপারেশনের পর উন্নত চিকিৎসার জন্য লন্ডনে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কিংস কলেজ হাসপাতালে অপারেশনের পর দেশবাসীর ভালোবাসার অসীম টানে ১৯৯৩ সালের ১ জানুয়ারি দেশে ফিরে আসেন মাটি ও মানুষের প্রতি নিবেদিত প্রাণ এই নেতা।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!