শিরোনাম
কেতকীবাড়ি চান্দখানার রাস্তার বেহাল দশা দেখার কেউ নেই ছাত্র আন্দোলন আমিরাবাড়ী ইউনিয়নের আহবায়ক কমিটি ঘোষণা ফুলবাড়িয়ায় জাতীয় পার্টির নেতার স্বরণ সভা ও দোয়া মাহফিল ভূঞাপুরে অবৈধভাবে ড্রেজার দিয়ে বালু উত্তোলনের দায়ে ৩জনকে কারাদণ্ড এবার নেত্রকোনায় ৩ নবজাতকের নাম রাখা হলো স্বপ্ন ,পদ্মা ও সেতু: নির্মাণ শেষ হওয়ার আগেই দেবে গেলো সাড়ে তিন কোটি টাকার সেতু সুনামগঞ্জে ১৫ দিনের ব্যবধানে দ্বিতীয় দফায় ভয়াবহ বন্যা, বিপাকে লক্ষ লক্ষ মানুষ নেত্রকোনায় বৃষ্টিপাত অব্যাহত, বেড়ে চলেছে নদ-নদীর পানি টাঙ্গাইলে ১৮ ইউপি নির্বাচনে আ.লীগ ১১, বিদ্রোহী ও স্বতন্ত্র ৭ টাঙ্গাইলে কিলোমিটার পোস্টে ‘বঙ্গবন্ধু’ বানান ভুল

আত্রাইয়ের বিদ্যুৎ ও সালামের বিরুদ্ধে মানব পাচারের অভিযোগ উঠেছে

ফরহাদ মিয়া রকি, আত্রাই (ন‌ওগাঁ) থে‌কে
  • আপডেট শনিবার, ২৫ জুন, ২০২২
  • ৩৪ দেখেছে

ন‌ওগাঁর আত্রাইয়ে পাঁচুপুর ইউনিয়নের পাঁচুপুরের বাবলু প্রামাণিকের ছেলে রাহিম ও পার-পাঁচুপুর এলাকার মৃত আব্বাস আলীর ছেলে রফিককে উপজেলার ভোঁপাড়া ইউনিয়নের কাশিয়াবাড়ী সোনাইডাঙ্গা এলাকার মৃত আঃ জব্বারের ছেলে সালাম ও মৃত দবিরের ছেলে বিদ্যুৎ উভয়ের যোগসাজশে বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে সৌদিতে পাঠাই। তাদেরকে আলমিরা কোম্পানিতে চাকরি দেওয়ার কথা থাকলেও একটি প্লাস্টিকের কোম্পানিতে চাকরি দেওয়া হয়। গত ২৭ জানুয়ারি তারা দুজন সৌদিতে যায়। ৫ মাস অতিবাহিত হলেও এখন পর্যন্ত তারা বেতন পেয়েছে দুই মাসের। তবে এই বেতন পেতেও বাংলাদেশ থেকে তাদের ষ্টষপরিবার ও আত্মীয়স্বজনের অনেক দৌড়াদৌড়ি করতে হচ্ছে। এছাড়া তাদের এখনো ইকামা হয় নাই যার দরুন তারা এখন অবৈধ অভিবাসী হিসেবে অবস্থান করছে সৌদিতে। বর্তমানে যেই কম্পানিতে তারা অবস্থান করছে, সেই কোম্পানির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে তারা যদি ইকামা না করে তাহলে কোম্পানি থেকে তাদের বাহির করে দিবে।

বনানীর ৪ নং রোডের বনান্ত ভিলায় ফয়সাল ওভারসিজ রিক্রুটিং লাইসেন্স নং ১৩৮৭, সত্ত্বাধিকারী ফারুক হোসেন। তাদের মাধ্যমে পাঠানোর কথা ছিল। রাহিম ও রফিক দুইজনকেই ফয়সাল ওভারসিজের ম্যানেজার আহম্মেদর সাথে কথা বলানো হয়। এছাড়া তাদের পরিবার সালামের সাথে যোগাযোগ করতে গেলে ফয়সাল ওভারসিজে আসতে বলে, এইটাই নাকি তার অফিস। তবে তাদের কন্ট্রাক্ট ফর্মে দেখা যায় কিস‌ওয়া এন্টারপ্রাইজ রিক্রুটিং লাইসেন্স নং ৫৭৩ সত্ত্বাধিকারী রাজিব আহমেদ, এই এজেন্সির সাথে তাদের দুই বছরের কন্ট্রাক্ট আছে মাসিক বেতন সৌদি রিয়াল ৯০০ খাবার ২০০ মোট ১১০০ রিয়াল।
এছাড়া ইকামা, চিকিৎসা সেবা কম্পানি করে দিবে।
তবে তারা ৫ মাস কাজ করলেও বেতন পেয়েছে ২ মাসের।

রহিম ও রফিকের পরিবার সালামের সাথে যোগাযোগ করলে তাদের ঢাকায় আসতে বলে বসে সমাধান করবে। তবে ঢাকায় গেলে তাকে আর পাওয়া যায় না। সে তাল-বাহানা শুরু করে আমি ঢাকায় নাই বাহিরে আছি।
অভিযোগ উঠেছে রহিম ও রফিকের পরিবারের সদস্যরা রিক্রুটিং এজেন্সির ম্যনেজারের সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, আমি কিছু বলতে পারবো না যাদের মাধ্যমে ওদেরকে পাঠানো হয়েছে তাদের ধরেন। এছাড়া আপনারা এখানে বেশি লাফালাফি করবেন ওরা ওখানে কষ্ট পাবে।

ফয়সাল ওভারসিজের ম্যানেজার আহম্মেদের সাথে কথা বললে তিনি জানান, রাহিম ও রফিকে আমাদের মাধ্যমে পাঠানোর কথা ছিল। তবে সেই মুহূর্তে আমাদের কাছে ভিসা না থাকায় অন্য এজেন্সির কাছ থেকে নিয়ে তাদের পাঠিয়েছি।
এর বেশি কিছু বলতে পারবোনা।

এবিষয়ে বিদ্যুৎ ও সালামের সাথে যোগাযোগ করলে তারা কথা বলতে পারবেনা বলে জানায়।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই সংক্রান্ত আরও খবর

ফেইসবুক পেজ

error: Content is protected !!